Thu. Feb 27th, 2020

Onesylhet24.com

Online News Paper

একুশের আলোকে নাট্য পদর্শনীর ৮ম দিন অতিবাহিত

‘একুশে মিছিল, একুশে হাঁটা, একুশ মানে না পথের কাঁটা’ এই স্লোগানে সিলেটের সাংস্কৃতিক আন্দোলনের অন্যতম চালিকা শক্তি সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেট আয়োজিত মহান একুশের আলোকে নাট্য প্রদর্শনীর ৮ম দিন ছিল শনিবার। সন্ধ্যা ৭টায় কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে মঞ্চস্থ হয় দর্পন থিয়েটার সিলেটের নাটক ‘হট্টমালার ওপারে’। ১৭দিন ব্যাপী এই নাট্য প্রদর্শনীতে অংশ নিচ্ছে সিলেটের ১৬টি নাট্যদল। নাট্যপ্রদর্শনী উপলক্ষ্যে সিলেটের নাট্যমোদী দর্শকের উপস্থিতি ও উৎসাহ এযাবতকালের সর্ববৃহৎ নাট্যপ্রদর্শনীকে প্রাণবন্ত করে তুলছে। হট্টমালার ওপারে নাটকটি রচনা করেছেন বাদল সরকার। নির্দেশনা দিয়েছেন এজাজ আলম। নাটক পুণঃনির্দেশনা দেন নাহিদ পারভেজ বাবু ও সুপিয় দেব শান্ত।
নাট্যমোদী দর্শকদের উপস্থিতিতে চমৎকার পরিবেশনার মধ্য দিয়ে মঞ্চস্থ হয় ৮ম দিনের প্রযোজনা। নাটক মঞ্চায়ন শেষে দর্পন থিয়েটারকে ফুল ও সম্মাননা তুলে দেন সম্মিলিত নাট্য পরিষদের প্রাক্তন প্রধান পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা নাট্যজন নিজামউদ্দিন লস্কর ও নাট্য সংগঠক মু. আনোয়ার হোসেন রনি। এসময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সভাপতি মিশফাক আহমেদ চৌধুরী মিশু ও সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত।
১৬টি নাট্য দলের অংশ গ্রহণে ১লা ফেব্র“য়ারি থেকে রিকাবীবাজার কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে শুরু হয় একুশে আলোকে নাট্য প্রদর্শনী।
নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয়ে করেন নাহিদ পারভেজ বাবু, সুপ্রিয় দেব শান্ত, অতনু দে, হাসনা আলম অমি, কানন চন্দ, অসীম শর্মা, এনামুল হক সামি, প্রমা ভট্টাচার্য্য, রাহুল রাজ নাথ, মহাশ্বেতা দেব পুরকায়স্থ শশী মল্লিকা চক্রবর্তী, জয়িতা জেহেন প্রিয়তী, ক্ষমাশ্রী ভট্টাচার্য্য পর্ণা ও নমিতা ভট্টাচার্য্য অর্চি।
নতুনের গান গাওয়া একঝাঁক তরুণ প্রাণবন্ত মঞ্চকর্মীদের মনের আনন্দে মঞ্চে পদচারণা করার জন্য হট্টমালার ওপারে নাটকটি অত্যন্ত চমৎকারভাবে মঞ্চায়িত হয়েছে। নাটকে মানুষের জীবনযাত্রার ভিন্নরূপ ফুটিয়ে তুলেন কলাকৌশলীরা। নাটকের মধ্য দিয়ে সমাজের একটি চমৎকার চিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়। যার মধ্য দিয়ে একটি সুন্দর পৃথিবী ফুটে উঠবে।
আজ রবিবার ১৭দিনব্যাপী নাট্যোৎসবের ৯ম দিনে নাট্যলোক সিলেট (সুরমা) মঞ্চায়ন করবে ‘মুল্লুক’ নাটক। আগামী ১৭ ফেব্র“য়ারি পর্যন্ত প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টায় রিকাবীবাজার কবি নজরুল অডিটোরিয়াম মঞ্চে নাটক মঞ্চায়িত হবে। নাটকের প্রবেশপত্র হল কাউন্টারে বিকেল ৫টা থেকে পাওয়া যাবে। ১৭দিনব্যাপী নাট্য প্রদর্শনীতে সহযোগিতা করছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়, সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও জেলা পরিষদ, সিলেট।