Sat. Sep 26th, 2020

Onesylhet24.com

Online News Paper

খুলনাকে মাটিতে নামিয়ে প্রথম জয়ের স্বাদ নিল সিলেট

অনলাইন ডেস্ক: ম্যাচের শুরুতে দুই দল ছিল চূড়ান্ত বিপরীতে। এক দল বিপিএলে একমাত্র দল হিসেবে অপরাজিত ছিল। অন্য দল প্রথম চার ম্যাচেই হেরে জয়ের স্বাদ খুঁজে ফিরছে। কিন্তু আন্দ্রে ফ্লেচার ও জনসন চার্লসের ক্যারিবীয় সুর বদলে দিল পরিস্থিতি। টানা তিন ম্যাচ জেতা খুলনা টাইগার্সকে ৮০ রানে হারিয়ে দিয়েছে সিলেট থান্ডার।

২৩৩ রানের লক্ষ্য পেয়েছিল সিলেট। গতকালই চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স ম্যাচ দেখিয়ে দিয়েছে কোনো লক্ষ্যই জহুর আহমদ স্টেডিয়ামে নিরাপদ নয়। কিন্তু খুলনা সেটা দেখাতে পারেনি। আগের তিন ম্যাচেই উড়ন্ত সূচনা এনে দিয়েছেন রহমানউল্লাহ গুরবাজ ও রাইলি রুশো। রুশো আজও চেষ্টা করেছেন। ৩২ বলে ৫২ রান করেছেন চারটি করে চার ও ছক্কায়। কিন্তু প্রথম বলেই ক্যাচ তুলে দিয়ে ফিরে এসেছেন গুরবাজ। অন্য ভরসা মুশফিকুর ৮ বলে করেছেন ১২ রান। ফলে রান তাড়ার কোনো পর্যায়েই মনে হয়নি খুলনার জয়ের সম্ভাবনা আছে। ছয়ে নামা রবি ফ্রাইলিংক ২০ বলে ৪৪ রান করে ব্যবধানটা একটু কমিয়ে এনেছেন। ৯ বল বাকি থাকতে ১৫২ রানে অলআউট হয়েছে খুলনা।

এর আগে আজ সিলেট যেভাবে শুরু করেছিল, তাতে বিপিএলের সব রেকর্ড ভেঙেচুরে যাবে বলে মনে হচ্ছিল। পাওয়ার প্লেতেই এসেছে ৭২ রান। নবম ওভারের শুরুতেই এক শ ছুঁয়েছে সিলেট। ১০ ওভার শেষে ১২২ রান ছিল থান্ডারের। দ্বাদশ ওভারেই দেড় শ পার করে দিয়েছেন চার্লস ও ফ্লেচার। পরে নামলেও ধ্বংসাত্মক মূর্তিতে ছিলেন চার্লস। ২৫ বলে পঞ্চাশ ছোঁয়া চার্লস ৩৮ বলে ৯০ করে ফেরার পরই রানের গতি কমেছে সিলেটের। ১৩তম ওভারে চার্লস যখন যাচ্ছেন দলের রান তখন ১৬১! ৭০ বলে ১৫০ রান এনে দিয়ে চার্লস-ফ্লেচার জুটি।

এর পরে নামা সিলেটের বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা শুধু ড্রেসিংরুম থেকে উইকেটে আসা যাওয়া করেছেন। অন্য প্রান্তে থাকা ফ্লেচারের তাতে কিছু আসে যায়নি। ২৬ বলে ফিফটির পর দ্বিতীয় ফিফটি পেতে ২৭ বল দরকার হয়েছে ফ্লেচারের। ৫৭ বলে ১০৩ রানে অপরাজিত থাকা এই ওপেনারই দলকে এনে দিয়েছেন ২৩২ রানের বড় সংগ্রহ। ৫৭ বলে ১০৩ করা ফ্লেচার ও চার্লস—দুজনের ইনিংসেই ১১টি চার ও ৫টি করে ছক্কা!